প্রবল ঘূর্ণিঝড়ের আকার নিলো ‘তাওকতে’

Print Friendly, PDF & Email

নিউজ ডেস্ক : আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে মারাত্মক ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে ঘূর্ণিঝড় ‘তাওকতে’র। এরপর সেটি উত্তর-উত্তর পশ্চিম দিকে রওনা দিয়ে মঙ্গলবার পৌঁছাবে গুজরাটে।

ভারতের আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে, সোমবার রাতে ঘূর্ণিঝড়ের দাপট সব থেকে বেশি থাকবে। ঘণ্টায় ১৫০-১৬০ কিলোমিটার বেগে বইবে ঝড়। কখনও কখনও তা ঘণ্টায় ১৭৫ কিলোমিটারে পৌঁছে যেতে পারে।

শনিবার রাত পর্যন্ত পাওয়া খবর অনুসারে এই ঘূর্ণিঝড় উত্তর-উত্তর পশ্চিম দিকে যাত্রা শুরু করেছে। এর গতিবেগ এখন ঘণ্টায় ১২ কিলোমিটার। গোয়া থেকে ২২০ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণ পশ্চিমে অবস্থান করছে এটি।

মুম্বাই থেকে রয়েছে ৫৯০ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণ পশ্চিমে। আর গুজরাট থেকে ৮২০ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণ পশ্চিমে রয়েছে। শনিবার বিকেল পর্যন্ত পূর্ব মধ্য আরব সাগরে অবস্থান করেছে এটি।

ঘূর্ণিঝড় আছড়ে পড়ার আগেই গুজরাট উপকূলবর্তী এলাকা-সহ দিউতে হলুদ সতর্কতা জারি করেছে আবহাওয়া অফিস। ইতোমধ্যেই ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে একাধিক রাজ্যে নিম্নচাপ তৈরি হয়েছে। যার জেরে কেরালায় ভারী বৃষ্টিপাত শুরু হয়েছে। সমুদ্রবর্তী এলাকায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে রাস্তাঘাট। পরিস্থিতি মোকাবিলায় গুজরাত, মহারাষ্ট্র, কেরালা, কর্নাটক এবং তামিলনাড়ুতে জাতীয় বিপর্যয় মেকাবিলা বাহিনীর ৫০টিরও বেশি দল মোতায়েন করা হয়েছে। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে গুজরাটের উপকূলবর্তী এলাকায় ভারী বৃষ্টিপাত-সহ ধস নামতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

শনিবার ঘূর্ণিঝড়ের মোকাবিলায় ওই রাজ্যগুলিকে নিয়ে একটি প্রস্তুতি বৈঠক করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। সেখানে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরা ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলায় সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলির প্রতিনিধি। ইতিমধ্যেই ক্ষতিগ্রস্তদের নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য আধিকারিকদের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

সূত্র: আনন্দবাজার, এনডিটিভি, কলকাতা২৪