এমন নির্মম-জঘন্য হত্যাকাণ্ড কোথাও ঘটেনি : কৃষিমন্ত্রী

Print Friendly, PDF & Email

নিউজ ডেস্ক : কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, ‘১৫ আগস্টের হত্যাকাণ্ড মানব ইতিহাসের বর্বরোচিত ঘটনা। আমরা অনেক হত্যার কথা জানি, আমরা আব্রাহাম লিংকন, জন এফ কেনেডিসহ বিশ্বের অনেক রাজনৈতিক হত্যাকাণ্ডের কথা জানি। কিন্তু এমন নিষ্ঠুর, নির্মম, পৈশাচিক ও জঘন্য হত্যাকাণ্ড কোথাও হয়নি। অন্তঃসত্ত্বা মহিলা, শিশু রাসেল, বঙ্গমাতা কেউ বাদ যায় নি। এর চেয়ে মর্মান্তিক ও দুঃখজনক ঘটনা আর কী হতে পারে।’

মন্ত্রী সোমবার (১৭ আগস্ট) সকালে বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশন (বিএডিসি) আয়োজিত জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস ২০২০ পালন উপলক্ষে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কৃষি মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. নাসিরুজ্জামান।

মন্ত্রী বলেন, ‘১৫ আগস্টে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে তার আদর্শকে হত্যা করতে চেয়েছিল দেশি বিদেশি ষড়যন্ত্রকারীরা। সেই ষড়যন্ত্রকারীরা এখনও তৎপর রয়েছে। সেজন্য ১৫ আগস্টের হত্যার পেছনে যারা ছিল, সেসব কুশীলবদের চেহারা উন্মোচন করা দরকার। ইতোমধ্যে সেসব কুশীলবদের অনেকের চেহারা তাদের কথাবার্তা ও কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে জাতির সামনে উন্মোচিত হয়েছে, একটি কমিশন গঠন করে সরকারিভাবে তাদের নাম লিপিবদ্ধ করা উচিত। লিপিবদ্ধ করে তাদের কুৎসিত চেহারা জাতির সামনে তুলে ধরতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘৭১ এর যুদ্ধাপরাধীরা মানবতাবিরোধী, এরা মানবতার শত্রু। এরা ধর্মকে রাজনৈতিকভাবে ব্যবহার করতে চায়। ধর্মকে ব্যবহার করে বাংলাদেশের সংস্কৃতি, আদর্শ ও ঐতিহ্যকে বিলুপ্ত করতে চায়। মুক্তিযুদ্ধের সময় যে কায়দায় এরা হত্যাকাণ্ড ও নির্যাতন চালিয়েছিল ঠিক একই কায়দায়, একই ধারায় দিবালোকে ২১ আগস্টে গ্রেনেড হামলা করেছে, যুদ্ধের মতো। ১৫ আগস্ট এবং ২১ আগস্টে গ্রেনেড হামলা একইসূত্রে গাঁথা।’

বিএডিসি কর্মকর্তাদের উদ্দেশে মন্ত্রী বলেন, ‘দেশের কৃষির উন্নয়নে বিএডিসির গুরুত্ব অপরিসীম। সার, বীজ, সেচসহ কৃষি উপকরণ সরবরাহে বিএডিসিকে আরও এগিয়ে আসতে হবে। আপনারা নতুন নতুন জাত ও প্রযুক্তি বাস্তবায়নে এগিয়ে আসুন। বেসরকারি কোম্পানিগুলো যেখানে নতুন নতুন জাত ও প্রযুক্তি সম্প্রসারণে এগিয়ে যাচ্ছে সেখানে বিএডিসি কেন পিছিয়ে আছে, সেটি গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করে যুগোপযোগী উদ্যোগ নিতে হবে। আপনারা সততা, নিষ্ঠা ও আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করবেন। তাহলেই বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বাস্তবায়িত হবে, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা, সমৃদ্ধ বাংলাদেশ, শান্তির বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠিত হবে। শোক দিবস পালন অর্থপূর্ণ হবে।’

বিএডিসির চেয়ারম্যান মো. সায়েদুল ইসলামের সভাপতিত্বে বিএডিসির সদস্য পরিচালক (অর্থ) মো. আমিরুল ইসলাম, সদস্য পরিচালক (ক্ষুদ্রসেচ) মো. আরিফ, সদস্য পরিচালক (সার ব্যবস্থাপনা) ড. এ কে এম মুনিরুল হক, সদস্য পরিচালক (বীজ ও উদ্যান), মো. নূরনবী সরদার, সচিব মো. আনোয়ার ইমাম প্রমুখ সভায় বক্তব্য দেন।