চলচ্চিত্রে অনুদান পেলেন অভিনেত্রী শমী কায়সার

Print Friendly, PDF & Email

নিউজ ডেস্ক : ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরে চলচ্চিত্রে অনুদানের চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশের বিশ দিন পর অভিনত্রী শমী কায়সারের একটি চলচ্চিত্রকে অনুদান দেওয়ার সিদ্ধান্তে এসেছে অনুদান কমিটি।
মঙ্গলবার তথ্য মন্ত্রণালয়ে অনুদান কমিটির সদস্যদের সভায় সর্বসম্মতিক্রমে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে গনমাধ্যমে নিশ্চিত করেছেন তথ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. মিজান উল আলম।

রেগুলেশন শেষে চলচ্চিত্রের নতুন তালিকা গেটেজ আকারে শিগগিরই প্রকাশ করা হবে বলেও জানান তিনি।

শমী কায়সার জানান, বিষয়টি এখনও আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হয়নি তাকে।

সভায় তথ্যসচিব আবদুল মালেকের সভাপতিত্বে যোগ দিয়েছিলেন সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব নাসির উদ্দীন ইউসুফ, নাট্যজন মামুনুর রশীদ, নির্মাতা মোরশেদুল ইসলাম, চলচ্চিত্র পরিচালক মতিন রহমান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চলচ্চিত্র বিভাগের অধ্যাপক শফিউল আলম ভূঁইয়া, বাংলাদেশ টেলিভিশনের মহাপরিচালক এস এম হারুন অর রশীদ ও তথ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. মিজান উল আলম।

এর আগে গত ২৫ এপ্রিল প্রকাশিত গেটেজে ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরে একটি শিশুতোষ চলচ্চিত্র, দুইটি প্রামাণ্যচিত্র ও সাধারণ শাখায় পাঁচটিসহ মোট আটটি চলচ্চিত্রকে অনুদানের সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। শমী কায়সারের চলচ্চিত্রসহ মোট নয়টি চলচ্চিত্র অনুদান পাচ্ছে।

সাধারণ শাখায় অনুদান পেয়েছে কবরীর ‘এই তুমি সেই তুমি’, শমী কায়সারের ‘স্বপ্ন মৃত্যু ভালোবাসা’, মীর সাব্বিরের ‘রাত জাগা ফুল’, আকরাম খানের ‘বিধবাদের কথা’, কাজী মাসুদের প্রযোজনা ও হোসনে মোবারক রুমির ‘অন্ত্যোষ্টিক্রিয়া’, লাকী ইনামের প্রযোজনায়, হৃদি হকের পরিচালনায় ‘১৯৭১ সেইসব দিন’।

শিশুতোষ শাখায় অনুদান পেয়েছে পরিচালক আবু রায়হান মো. জুয়েলের ‘নসু ডাকাত কুপোকাত’।

প্রামাণ্যচিত্র শাখায় অনুদান পেয়েছে হুমায়রা বিলকিসের ‘বিলকিস এবং বিলকিস’, পুরবী মতিনের ‘খেলাঘর’।