ডিএনসিসির মার্কেট ভেঙে আন্তর্জাতিক মানের শপিং মল করা হবে : হানিফ

Print Friendly, PDF & Email

নিউজ ডেস্ক : ২০১৭ সালের ৩ জানুয়ারি গুলশান-১ নম্বরে ডিএনসিসি মার্কেটে আগুন লেগেছিল। তার ঠিক দুই বছর ৩ মাস পর আজ (৩০ মার্চ, শনিবার) একই মার্কেটে আবারও অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটল। সেই সময় তৎকালীন মেয়র প্রয়াত আনিসুল হক বলেছিলেন, ডিএনসিসি মার্কেট ভেঙে শপিং মল তৈরি করা হবে। এবার দ্বিতীয় দফায় অগ্নিকাণ্ডের পর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ সেটা পুনর্ব্যক্ত করলেন।

শনিবার (৩০ মার্চ) গুলশান-১ নম্বর ডিএনসিসি কাঁচাবাজারের অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, এই মার্কেটটি ভেঙে আন্তর্জাতিক মানের শপিং মল করার কথা ছিল। যেকোনো কারণে এটা হয়নি। কিন্তু এখন জনগণের স্বার্থে যেকোনো মূল্যে এটাকে (ডিএনসিসি মার্কেট) ভেঙে মার্কেট তৈরি করতে হবে।

মাহবুবুল আলম হানিফ বলেন, কাঁচাবাজারের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক আমার দুই পাশে দাঁড়িয়ে রয়েছেন। তারা আজকেই সিটি কর্পোরেশনের সঙ্গে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত জানাবে। যেসব ব্যবসায়ী ক্ষয়ক্ষতি হয়েছেন, তাদের বিষয়ে সিটি কর্পোরেশন খোঁজ-খবর নিচ্ছে।

এর আগে মার্কেটে পুড়ে যাওয়া দোকান মালিকদের সঙ্গে কথা বলেন তিনি এবং ক্ষতিগ্রস্তদের সান্ত্বনা দেন।

রাজধানীর বনানীর বহুতল ভবনে অগ্নিকাণ্ডের রেশ কাটতে না কাটতেই আজ শনিবার গুলশানের ডিএনসিসি মার্কেটের কাঁচা ও সুপার মার্কেটে আগুন লাগে। ভোর ৫টা ৪৮ মিনিটের দিকে এ আগুনের সূত্রপাত হয়। পরে ফায়ার সার্ভিসের ২০টি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

২০১৭ সালের ৩ জানুয়ারি একই মার্কেটে আগুন লেগেছিল। সেই সময় ১৬ ঘণ্টা চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা। মার্কেটের নিচতলা ও দোতলার মোট ৬০৫টি দোকান পুড়ে গিয়েছিল।

এদিকে আগুনের খবর পেয়ে গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম, ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) বর্তমান মেয়র আতিকুল ইসলাম, স্থানীয় (ঢাকা-১৭) সংসদ সদস্য ও চিত্রনায়ক ফারুক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।