কলেজছাত্র হত্যা মামলায় লক্ষ্মীপুরে ১৪ জনের যাবজ্জীবন

Print Friendly, PDF & Email

নিউজ ডেস্ক : লক্ষ্মীপুরে ডাকাতিকালে কলেজছাত্র দীপ্ত পালকে গুলি করে হত্যার ঘটনায় করা মামলায় ১৪ আসামির যাবজ্জীবন স্বশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

এসময় আসামিদের প্রত্যেকের ২০ হাজার টাকা করে জরিমানা ও অনাদায়ে আরো এক বছর করে সশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ দেয়া হয়।

বুধবার দুপুরে অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক নজমুল হুদা তালুকদার এ রায় দেন। রায়ের সময় দণ্ডপ্রাপ্ত ৫ আসামি আদালতে উপস্থিত ছিলেন। লক্ষ্মীপুর জেলা ও দায়রা জজ আদালতের সহকারী সরকারি কৌসুলি (এপিপি) আবুল কালাম রায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- লক্ষ্মীপুরের কমলনগর উপজেলার চরকাদিরা গ্রামের মাঈন উদ্দিন মানু, রামগঞ্জের লামচর গ্রামের মো. রশিদ, কামরুল ইসলাম রাজু, কালুপুর গ্রামের মো. হোসেন, রসুলপুর গ্রামের সালেহ আহমেদ সুজন, মাঝিরগাঁও গ্রামের সাইফুল ইসলাম সুমন, করপাড়া গ্রামের কামাল, মঞ্জুর আলম, গাজীপুর গ্রামের মহসিন, বদরপুর গ্রামের কামাল হোসেন, পশ্চিম লক্ষ্মীপুর গ্রামের মিলন হোসেন, মো. ফারুক, সদরের চর লামচী গ্রামের জাহাঙ্গীর আলম, পশ্চিম লতিফপুর গ্রামের সাহেদুর রহমান কিরন ও উত্তর বাঞ্চানগর গ্রামের অহিদুর রহমান। এরমধ্যে কামরুল ইসলাম রাজু, জাহাঙ্গীর আলম, সাইফুল ইসলাম সুমন, অহিদুর রহমান ও কামাল আদালতে উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া মামলা আসামি সুজন মৃত্যুবরণ করেছেন। অন্য ৮ দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি পলাতক রয়েছেন।

পুলিশ ও আদালত সূত্র জানায়, সদর উপজেলার মধ্য হামছাদী গ্রামে ২০১১ সালের ২ জুলাই রাতে পুলিশ পরিচয়ে মুখোশধারী ২০-২৫ জনের একদল ডাকাত ব্যবসায়ী কার্তিক পালের বসতঘরে ঢোকে। এ সময় অস্ত্রের মুখে পরিবারের সদস্যদের জিম্মি করে স্বর্ণালংকার ও টাকা লুটে নেওয়া হয়। এতে বাধা দিলে ব্যবসায়ীর ছেলে লক্ষ্মীপুর সরকারি কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র দীপ্ত পাল ও তার মেঝো ভাই সঞ্জয় পাল কাঞ্চনকে মারধর করে ডাকাতরা। চিৎকারের এক পর্যায়ে তারা দুইজনকেই গুলি করে।

মামলার রায় শোনার পর আদালত প্রাঙ্গণে কান্নায় ভেঙে পড়েন বাদী কার্তিক পাল। এ সময় তিনি আসামিদের ফাঁসির দাবি জানিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, ন্যায় বিচার পেতে আমি উচ্চ আদালতে যাব।

Be the first to comment on "কলেজছাত্র হত্যা মামলায় লক্ষ্মীপুরে ১৪ জনের যাবজ্জীবন"

Leave a comment

Your email address will not be published.




8 − three =