নির্বাচনে কোনো বাধা ছিল না : ভারপ্রাপ্ত সচিব

Print Friendly, PDF & Email

নিউজ ডেস্ক : আইনি বিষয়গুলো পর্যালোচনা করেই ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছিল। পর্যালোচনায় দেখা গেছে, নির্বাচন অনুষ্ঠানে কোনো বাধা নেই। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র পদে উপনির্বাচন ও সম্প্রসারিত অংশের কাউন্সিলর নির্বাচনের ওপর হাইকোর্টের স্থগিতাদেশের পরিপ্রেক্ষিতে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন নির্বাচন কমিশনের (ইসি) ভারপ্রাপ্ত সচিব হেলালুদ্দিন আহমদ।

আজ বুধবার ইসি সচিবালয়ে তিনি জানান, ওই নির্বাচন স্থগিত হলেও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি) ১৮টি সাধারণ ওয়ার্ড ও ৬টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে নির্বাচন যথাসময়ে হবে।

গত ৩০ নভেম্বর মেয়র আনিসুল হকের আকস্মিক মৃত্যুর পর ডিএনসিসির মেয়র পদে উপনির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। তফসিল অনুযায়ী, আগামী ২৬ ফেব্রুয়ারি ডিএনসিসির মেয়র পদসহ ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনে নতুন যুক্ত হওয়া ১৮টি করে ৩৬টি সাধারণ ওয়ার্ড এবং ৬টি করে ১২টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডেরও ভোট হওয়ার কথা ছিল।

৯ জানুয়ারি তফসিল ঘোষণার এক সপ্তাহের ব্যবধানে এর বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে গতকাল মঙ্গলবার পৃথক রিট হয়। একটি রিটের আবেদনকারী ভাটারা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান আতাউর রহমান। অপর রিট আবেদনকারী হলেন বেরাইদ ইউপির চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম।

দুটি পৃথক রিট আবেদনের ওপর শুনানি শেষে আজ বিচারপতি নাইমা হায়দার ও বিচারপতি জাফর আহমেদের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ তিন মাসের জন্য নির্বাচনের কার্যক্রম স্থগিত করার আদেশ দেন।

যে আইনি জটিলতার বিষয় রিট আবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, তা আগে গণমাধ্যমেও লেখা হয়েছিল। সে ক্ষেত্রে বিষয়টি জেনেও নির্বাচনের তফসিল কেন ঘোষণা করা হয়েছিল—সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে কমিশনের ভারপ্রাপ্ত সচিব হেলালুদ্দিন আহমদ বলেন, নির্বাচন করা ইসির দায়িত্ব। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় থেকে এসব নির্বাচন করার জন্য অনুরোধ পেয়েছে ইসি। সেভাবেই প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। আইনি বিষয়গুলো পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, নির্বাচন অনুষ্ঠানে কোনো বাধা নেই। এর পরিপ্রেক্ষিতেই নির্বাচনের তফসিল, সার্কুলার ঘোষণা করা হয়।

এখন নির্বাচন কার্যক্রম বন্ধ থাকবে কি না, তা জানতে চাওয়া হলে ভারপ্রাপ্ত সচিব বলেন, হাইকোর্টের আদেশের ব্যাপারে কমিশন গণমাধ্যম থেকে জানতে পেরেছে। আদেশের লিখিত কপি পাওয়ার পর নির্বাচন বিষয়ে পরবর্তী করণীয় ঠিক করা হবে। কমিশন সব সময় আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল।

তবে দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ১৮টি সাধারণ ওয়ার্ড ও ৬টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদে নির্বাচন ২৬ ফেব্রুয়ারি যথাসময়ে হবে বলে তিনি জানান।

এদিকে ভোটার তালিকা নিয়ে কোনো সমস্যা ছিল না বলে জানিয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা আবুল কাশেম। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, ভোটার তালিকা প্রস্তুত আছে। তালিকার সিডিও প্রকাশ করা হয়েছে। হাইকোর্টে রিট আবেদনকারী গত সোমবার মনোনয়নপত্র নিতে এসেছিলেন নির্বাচন কমিশন কার্যালয়ে। তাঁকে ভোটার তালিকার সিডি দেওয়া হয়েছিল। ভোটার তালিকায় তাঁর নামও আছে।

Be the first to comment on "নির্বাচনে কোনো বাধা ছিল না : ভারপ্রাপ্ত সচিব"

Leave a comment

Your email address will not be published.




four × five =