বাসভাড়া বাড়লো সিটিতে প্রতি কিমি ৩৫, দূরপাল্লায় ৪০ পয়সা

Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার : জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির পরিপ্রেক্ষিতে সিটিতে প্রতি কিলোমিটারে বাস ও মিনিবাসে ভাড়া ৩৫ পয়সা বাড়িয়েছে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ)। দূরপাল্লায় বাসভাড়া বাড়িয়েছে ৪০ পয়সা। শনিবার (৬ আগস্ট) বনানীতে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) প্রধান কার্যালয়ে পরিবহন মালিক সমিতির নেতাদের সঙ্গে বিআরটিএ’র ভাড়া নির্ধারণী কমিটির বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়।

বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন বিআরটিএ চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ মজুমদার। উপস্থিত ছিলেন সড়ক ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব এ বি এম আমিন উল্লাহ নুরী, সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির মহাসচিব খন্দকার এনায়েত উল্লাহসহ অংশীজন।

বিকাল ৫টায় শুরু হওয়া এই বৈঠক চলে রাত সাড়ে ৯টা পর্যন্ত। পরে ব্রিফ করেন সড়ক ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব এ বি এম আমিন উল্লাহ নুরী এবং বিআরটিএ চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ মজুমদার।

বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী দূরপাল্লার বাসের ভাড়া কিলোমিটারে ১ টাকা ৮০ পয়সার জায়গায় ২ টাকা ২০ পয়সা হবে। এ ক্ষেত্রে ভাড়া বাড়ছে কিলোমিটার প্রতি ৪০ পয়সা, অর্থাৎ ২২ শতাংশ। আর ঢাকা, চট্টগ্রামসহ মহানগরগুলোতে ১৬ দশমিক ২৭ শতাংশ ভাড়া বাড়ানোর সিদ্ধান্ত হয়েছে। মহানগরে বাসের ভাড়া কিলোমিটারে ২ টাকা ১৫ পয়সার জায়গায় ২ টাকা ৫০ পয়সা হচ্ছে। অর্থাৎ কিলোমিটার প্রতি ভাড়া বাড়ছে ৩৫ পয়সা।

রোববার (৭ আগস্ট) থেকে নতুন এই ভাড়া কার্যকর হবে বলে বৈঠক শেষে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়েছে।

শুক্রবার (৫ আগস্ট) রাতে জ্বালানি তেলের দাম এক লাফে লিটারে ৩৪ টাকা থেকে ৪৬ টাকা বাড়িয়েছে সরকার। ডিজেল ও কেরোসিনের দাম লিটারে ৩৪ টাকা বাড়িয়ে ১১৪ টাকা, অকটেনের দাম লিটারে ৪৬ টাকা বাড়িয়ে ১৩৫ টাকা এবং পেট্রলের দাম লিটারে ৪৪ টাকা বাড়িয়ে ১৩০ টাকা করা হয়েছে।

জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধিতে আজ সকাল থেকে ঢাকাসহ সারা দেশে গণপরিবহন খাতে বিশৃঙ্খলা দেখা দেয়। অনেকে বাস চালানো বন্ধ রাখেন। আবার ইচ্ছেমতো যাত্রীদের কাছ থেকে ভাড়া আদায় করা হয়। এই পরিস্থিতিতে বিকেলে বিআরটিএ–এর ভাড়া নির্ধারণী কমিটির বৈঠক হয়।

এর আগে গত বছর নভেম্বরে জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধির পর সারা দেশে বাসের ভাড়া গড়ে ২৭ শতাংশ বাড়ায় সরকার। তার নয় মাসের মাথায় আবারো বাসের ভাড়া বাড়ানো হলো।

এবার নৌপথের ভাড়া এখনো বাড়ানো হয়নি। তবে দু-এক দিনের মধ্যে লঞ্চের ভাড়া বাড়তে পারে। বাড়বে নৌপথে পণ্য পরিবহন ব্যয়ও। লোকসানের বোঝা আর বাড়াতে চায় না রেলওয়ে। এ জন্যে ভাড়া বৃদ্ধির চিন্তা করছে রেল কর্তৃপক্ষও।