ভিয়ারিয়ালকে হারিয়ে জয়ে ফিরল বার্সেলোনা

Print Friendly, PDF & Email

নিউজ ডেস্ক : প্রতিপক্ষের মাঠে গিয়ে সংগ্রাম করা বার্সেলোনা আধিপত্য ধরে রেখেছে ঘরের মাঠে। উত্থান-পতনের মধ্য দিয়ে যাওয়া এরনেস্তো ভালভেরদের শিষ্যরা ভিয়ারিয়ালকে হারিয়ে জয়ে ফিরেছে।
লা লিগার ম্যাচে মঙ্গলবার রাতে রোমাঞ্চ ছড়ানো ম্যাচে ২-১ গোলে জিতেছে শিরোপাধারীরা। তিনটি গোলই হয় প্রথমার্ধে। কাম্প নউয়ে অঁতোয়ান গ্রিজমান ও আর্থার মেলোর গোলে ১৫ মিনিটের মধ্যে ২-০ গোলে এগিয়ে যায় বার্সেলোনা। সান্তি কাসোরলার গোলে ব্যবধান কমায় ভিয়ারিয়াল।

সব ধরনের প্রতিযোগিতা মিলে দুই ম্যাচ পর জয় পেল বার্সেলোনা। উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগে বরুসিয়া ডর্টমুন্ডের বিপক্ষে গোলশূন্য ড্র করার পর গত শনিবার তারা লা লিগায় ২-০ ব্যবধানে হেরেছিল গ্রানাদার কাছে।

চোট কাটিয়ে চলতি মৌসুমে প্রথমবারের মতো শুরুর একাদশে খেললেন লিওনেল মেসি। অধিনায়ককে পেয়ে যেন বদলে গেল বার্সেলোনার শরীরী ভাষা। মাত্রই রেকর্ড ষষ্ঠবারের মতো ফিফা বর্ষসেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার জেতা এই তারকা শুরু থেকে ভীতি ছড়ান ভিয়ারিয়ালের রক্ষণে।

ক্লাবের হয়ে লা লিগায় শুরুর একাদশে নিজের চারশতম ম্যাচ খেলা মেসির দারুণ কর্নারই বার্সেলোনার প্রথম গোলের উৎস। দুই খেলোয়াড়ের মাঝে থাকলেও তাদের পাহারা এড়িয়ে জায়গা করে নিয়ে হেডে ঠিকানা খুঁজে নেন গ্রিজমান। পোস্টে লেগে বল জড়ায় জালে।
পঞ্চদশ মিনিটে বুলেট গতির শটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন আর্থার। দলে ফেরা সের্হিও বুসকেতসের বাড়ানো বল পেয়ে ২৫ গজ দূর থেকে জাল খুঁজে নেন এই ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার। তাকিয়ে দেখা ছাড়া করার কিছু ছিল না ভিয়ারিয়াল গোলরক্ষকের।

প্রথমার্ধের মাঝামাঝি সময়ে ঊরুতে চিকিৎসা নিতে দেখা যায় মেসিকে। এরপর একটু ভাটা পড়ে স্বাগতিকদের আক্রমণে। পাল্টা আক্রমণে রক্ষণে চাপ বাড়ায় ভিয়ারিয়াল। ৪৪তম মিনিটে কাসোরলার বুলেট গতির শটে ব্যবধান কমায় অতিথিরা। ডি-বক্সের বাইরে থেকে অভিজ্ঞ মিডফিল্ডারের বাঁ পায়ের শট ঝাঁপিয়ে ঠেকাতে পারেননি মার্ক-আন্ড্রে টের স্টেগেন।

দ্বিতীয়ার্ধে আর মাঠে নামেননি মেসি। চোট কাটিয়ে ফেরা উসমান দেম্বেলে তার জায়গায় নেমে ভীতি ছড়ান রক্ষণে। বেশ কয়েকটি সুযোগও তৈরি করেন ফরাসি ফরোয়ার্ড। তবে সেগুলো কাজে লাগাতে পারেননি লুইস সুয়ারেস, গ্রিজমানরা।

সুয়ারেসের জায়গায় বদলি নেমে গতি আর ড্রিবলিং দিয়ে অতিথিদের রক্ষণকে কাঁপিয়ে দেন আনসু ফাতি। ৮০তম মিনিটে ১৬ বছর বয়সী এই উইঙ্গারের শট একটুর জন্য লক্ষ্যে থাকেনি।

পাল্টা আক্রমণে মাঝে মধ্যেই বার্সেলোনার রক্ষণের পরীক্ষায় নেয় ভিয়ারিয়াল। তবে জমাট রক্ষণ আর ভাঙতে পারেনি লা লিগায় সবশেষ ১৯ ম্যাচেই গোল করা দলটি।

লা লিগায় চলতি আসরে বার্সেলোনা পেল তৃতীয় জয়। তিনটিই ঘরের মাঠে। ৬ ম্যাচে ভালভেরদের দলের পয়েন্ট ১০।

৬ ম্যাচে ১১ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে রয়েছে গ্রানাদা। ৫ ম্যাচে ১১ পয়েন্ট নিয়ে তাদের পরেই রয়েছে আথলেতিক বিলবাও ও রিয়াল মাদ্রিদ। রিয়াল সোসিয়েদাদ, সেভিয়া ও আতলেতিকো মাদ্রিদের পয়েন্ট ১০।