মায়ের কাছে ফিরতে কুয়েত দূতাবাসে অবৈধ অভিবাসীদের ঢল

Print Friendly, PDF & Email

নিউজ ডেস্ক : মধ্যপ্রাচ্যের দেশ কুয়েত সরকার ৬ বছর পর বিভিন্ন দেশের অবৈধ অভিবাসীদের সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করেছে। ৩০ জানুয়ারি ভোর থেকে কুয়েতের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আসা অবৈধ বাংলাদেশিদের ঢল পড়েছে কুয়েতস্থ খালেদিয়া বাংলাদেশ দূতাবাসে।

সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত কয়েক হাজার অবৈধ বাংলাদেশিদের ভিড় দেখা গেছে দূতাবাসে। দীর্ঘদিন অবৈধ থাকার পর মাটি ও মায়ের কাছে যাচ্ছে বাংলাদেশি প্রবাসীরা। সাধারণ ক্ষমার মেয়াদ থাকছে ২৯ জানুয়ারি থেকে ২২ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। ২০১১ সালে সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করেছিল কুয়েত সরকার।

কুয়েতে বাংলাদেশ দূতাবাসের কাউন্সিলর আনিসুজ্জামান জানান, দুই দিনে প্রায় দুই থেকে আড়াই হাজার প্রবাসী দূতাবাসে এসেছেন সাধারণ ক্ষমার সুযোগ গ্রহণ করতে। এদের মধ্যে নতুন পাসপোর্ট, আউট পাসের (টিপি), সংখ্যা বেশি। চার ভাগের তিন ভাগই দেশে যেতে ইচ্ছুক। বাকিরা এখানে বৈধভাবে থাকার চেষ্টা করছেন।

তিনি জানান, সোমবার ও আজ মঙ্গলবার অবৈধ অভিবাসী যারা বৈধ হতে ইচ্ছুক তাদের প্রায় দুই থেকে তিন শত পাসপোর্টের আবেদন গ্রহণ করা হয়েছে। আউট পাস (টিপি) দেয়া হয়েছে প্রায় ১ হাজার ২০০ মতো। দূতাবাস থেকে কাগজপত্র দেয়ার পর সবাইকে স্থানীয় রেসিডেন্সিয়ালবিষয়ক বিভাগে যোগাযোগ করে তারপর দেশে যেতে হবে।

আর যারা বৈধ হয়ে আগের কফিল (মামলা না থাকে) থাকে তারা কুয়েত থেকে নতুন আকামা লাগাতে পারবেন। এবং যাদের নামে ইনহাস মামলা রয়েছে তার আগের কফিল যদি মামলা না তোলে সেক্ষেত্রে দেশে গিয়ে নতুন ভিসায় ফের কুয়েতে আসতে পারবেন।

দূতাবাস কাউন্সিলর আনিসুজ্জামান সব অবৈধ অভিবাসীর কাছে এ তথ্য পৌঁছানোর অনুরোধ জানিয়ে বলেন, এই সুযোগটি কুয়েতে অবৈধভাবে বসবাসরত সব প্রবাসীদের নেয়া উচিৎ। যারা এখানে থাকতে চান তারা নতুন কফিলের (মালিক) ব্যবস্থা করে থাকার চেষ্টা করতে পারেন।

কত দিনের মধ্যে এই পাসপোর্ট দেয়া হবে জানতে চাইলে কুয়েত দূতাবাসের শ্রম কাউন্সিলর আব্দুল লতিফ খান বলেন, দূতাবাস কর্তৃপক্ষ প্রবাসীদের সুবিধার্থে সহযোগিতার চেষ্টা করছে। সাধারণ ক্ষমার বিষয়টি নিয়ে তিনি বাংলাদেশে কমিউনিটির সহযোগিতা কামনা করেন।

Be the first to comment on "মায়ের কাছে ফিরতে কুয়েত দূতাবাসে অবৈধ অভিবাসীদের ঢল"

Leave a comment

Your email address will not be published.




five × 2 =