রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে স্কুলছাত্রীকে ‘গণধর্ষণ’

Print Friendly, PDF & Email

নিউজ ডেস্ক : গাইবান্ধার সাদুল্যাপুর উপজেলায় এক স্কুলছাত্রীকে রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় তিন যুবককে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে স্থানীয়রা।

এদিকে এ ঘটনায় জড়িত আরও দুই ধর্ষককে আটকের দাবিতে নলডাঙ্গায় শনিবার অর্ধদিবস হরতাল পালন করেছে বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী।

আটকরা হলেন- উপজেলার নলডাঙ্গা ইউনিয়নের দশলিয়া গ্রামের সোহাগ মিয়া, একই ইউনিয়নের কিশামত হামিদ গ্রামের বাবু মিয়া ও পশ্চিম খামার দশলিয়া গ্রামের শরিফুল ইসলাম।

গতকাল শুক্রবার রাত ৮টার দিকে উপজেলার নলডাঙ্গা ইউনিয়নের রেলগেট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার পর রেলগেট এলাকায় সোহাগের বাবার কনফেকশনারির দোকানে ভাঙচুর করেছে বিক্ষুব্ধ জনতা।

স্কুলছাত্রীর পরিবারের বরাত দিয়ে নলডাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান তরিকুল ইসলাম নয়ন জানান, গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় ওই ছাত্রী তার মায়ের সঙ্গে কাপড় কিনতে নলডাঙ্গা বাজারে যায়। কেনাকাটা শেষে মেয়েটিকে বাড়ি পাঠিয়ে তার মা পাশের গ্রামের বাবার বাড়িতে যান।

একা বাড়ি ফেরার পথে সরকারি খাদ্যগুদামের কাছে সোহাগ, বাবু, মাহফুজ ও রুবেল ওই ছাত্রীর পথরোধ করে। তারা চারজন মিলে ওই ছাত্রীর মুখে ওড়না পেঁচিয়ে জোরপূর্বক তুলে পাশের একটি আখখেতে নিয়ে গণধর্ষণ করে।

এ সময় স্কুলছাত্রীর চিৎকার শুনে আশপাশের লোকজন ছুটে গিয়ে সোহাগ, বাবু ও মাহফুজ নামের তিন যুবককে আটক করে গণধোলাই দেয়। এ সময় রুবেল নামের আরেক যুবক পালিয়ে যায়।

এ বিষয়ে সাদুল্যাপুর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বোরহান উদ্দিন বলেন, এ ঘটনায় তিনজনকে আটক করা হয়েছে। আর ওই স্কুলছাত্রীকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে বলেও জানান ওসি।

Be the first to comment on "রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে স্কুলছাত্রীকে ‘গণধর্ষণ’"

Leave a comment

Your email address will not be published.




nine − two =