খালেদার গ্রেফতারি পরোয়ানায় চিন্তিত বিএনপি

Print Friendly, PDF & Email

নিউজ ডেস্ক :  নির্বাচন কমিশনের (ইসি) সঙ্গে সংলাপের আগমুহূর্তে নেতা-কর্মীদের নতুন করে ধরপাকড়ে বিএনপির মাঠপর্যায়ে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। একই সঙ্গে দলীয় প্রধান খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে পরপর পাঁচটি মামলায় আদালতের গ্রেফতারি পরোয়ানা নিয়ে চিন্তিত দলটির নীতিনির্ধারকেরা।
বিএনপির নেতারা মনে করেন, আগামী সংসদ নির্বাচন নিয়ে নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে সংলাপের আগমুহূর্তে বিএনপিসহ বিরোধীদলীয় নেতা-কর্মীদের ধরপাকড় এবং দেশে ফেরার প্রাক্কালে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে একের পর এক গ্রেফতারি পরোয়ানার পেছনে রাজনৈতিক উদ্দেশ্য আছে। এর সঙ্গে আগামী নির্বাচনের সম্পর্ক আছে।
এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল একাধিক সূত্র বলছে, সাম্প্রতিক সময়ে প্রধান বিচারপতির ছুটিতে যাওয়া, রোহিঙ্গা সমস্যাসহ কিছু বিষয়ে সরকার চাপ অনুভব করছে। সরকারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র হচ্ছে বলেও মনে করা হচ্ছে। এ অবস্থায় চাপ সরানোর জন্য খালেদা জিয়ার মামলাগুলোকে সামনে নিয়ে আসা হয়েছে। বিভিন্ন এলাকায় বিরোধী রাজনৈতিক নেতাদের গ্রেফতার করা হচ্ছে। এর মাধ্যমে বিরোধী রাজনৈতিক শক্তিকে চাপে রাখাই মূল লক্ষ্য। এ ছাড়া সবকিছুতে সরকারের নিয়ন্ত্রণ আছে, এটাও দেখাতে চায়।
আগামীকাল রবিবার বিএনপির সঙ্গে নির্বাচন কমিশনের সংলাপের দিন ধার্য আছে। এদিকে চলতি মাসের শেষের দিকে যুক্তরাজ্য থেকে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার দেশে ফেরার কথা রয়েছে বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে। এরই মধ্যে গত সোমবার কুমিল্লায় দুই মামলায় এবং বৃহস্পতিবার ঢাকায় তিন মামলায় খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন আদালত। এ ছাড়া গত এক সপ্তাহে সারা দেশে বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠনের প্রায় তিন শ নেতা-কর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে দলের কেন্দ্রীয় দপ্তর সূত্র জানিয়েছে।
দলের নেতারা বলছেন, হঠাৎ করে এই গ্রেফতারি পরোয়ানা ও ধরপাকড়ের মাধ্যমে সরকার বিএনপিকে রাজনৈতিকভাবে আরও চাপে ফেলতে চাইছে। পাশাপাশি বিএনপিসহ বিরোধী দলকে আগামী সংসদ নির্বাচনের ব্যাপারে একটি বার্তাও দিতে চাইছে। বিশেষ করে, খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে একের পর এক গ্রেফতারি পরোয়ানা জারিকে বিএনপির নেতারা উদ্দেশ্যমূলক বলে মনে করছেন। এ পরিস্থিতিতে খালেদা জিয়া দেশে ফিরলে গ্রেফতার হবেন কি না, তা নিয়ে দলে আলোচনা ও আশঙ্কা আছে।
এ বিষয়ে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, সরকার বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোকে নির্বাচনে আসতে দিতে চায় না বলে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছে। তিনি খালেদা জিয়াকে গ্রেফতারের আশঙ্কা নাকচ করে দিয়ে বলেন, ‘আমরা গ্রেফতারের আশঙ্কা করি না। গ্রেফতার হলে হবে। সরকারের সাহস থাকলে গ্রেফতার করবে। আমরা বহুবার জেল খেটেছি। এটা নতুন কিছু নয়।’
জানা গেছে, দলীয় প্রধানের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা ও নেতা-কর্মীদের গ্রেফতার অভিযানের মধ্যেই বড়সড় প্রতিনিধিদল নিয়ে কাল সংলাপে যাচ্ছে বিএনপি। কিন্তু সংলাপের আগ দিয়ে নেতা-কর্মীদের ধরপাকড়ে বিএনপি ক্ষুব্ধ। দলের নেতারা বলছেন, একটি নিরপেক্ষ ও সবার অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে নির্বাচন কমিশনের সংলাপ চলছে। কিন্তু বিএনপির সংলাপের আগমুহূর্তে নেতা-কর্মীদের গ্রেফতার ও দলের চেয়ারপারসনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি একটি অশুভ ইঙ্গিত।
এ বিষয়ে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল বলেন, ‘ওরা (ক্ষমতাসীন দল) বিএনপিকে এত বেশি ভয় পায় যে বিএনপি সংলাপে যাবে, এটা শুনেই তাদের অন্তরাত্মা খাঁচাছাড়া হয়ে গেছে। তারা রাজনৈতিক দেউলিয়াত্বের কারণে এসব অরাজনৈতিক কার্যকলাপ করছে।’
তবে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও ১৪-দলীয় জোটের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম দাবি করেন, খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি ও বিভিন্ন স্থানে বিএনপির নেতা-কর্মীদের গ্রেফতারের ঘটনা ‘আইনি বিষয় ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর রুটিন ওয়ার্ক’। তিনি বলেন, ‘এর মধ্যে রাজনীতির কোনো বিষয় নাই। আমরাও বিরোধী দলে থাকতে এসব মোকাবিলা করেছি।’

Be the first to comment on "খালেদার গ্রেফতারি পরোয়ানায় চিন্তিত বিএনপি"

Leave a comment

Your email address will not be published.




1 × five =